নগদ ইসলামিক একাউন্ট কি | নগদ ইসলামিক একাউন্টের সুবিধা ও অসুবিধা

নগদ ইসলামিক একাউন্ট ২০২৪। নগদ ইসলামিক একাউন্টের সুবিধা ও অসুবিধা এ আপনাকে স্বাগতম!

নগদ ইসলামিক একাউন্ট, বাংলাদেশের ডাক বিভাগের ডিজিটাল লেনদেন (মোবাইল ফিনান্সিয়াল ব্যাংকিং বা মোবাইল ব্যাংকিং) সেবা “নগদ”। বর্তমান সময়ে মার্কেট লিডার মোবাইল ব্যাংকিং সেবা বিকাশের সাথে প্রতিযোগিতায় রয়েছে “নগদ” মোবাইল ব্যাংকিং।নগদ বিভিন্ন সময় তাদের গ্রাহকদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা প্রদান করে থাকে।

সম্প্রীতি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং চালু করেছে “নগদ ইসলামিক একাউন্ট”। আমাদের মধ্যে অধিকাংশই মানুষ মুসলিম এবং ধর্মভীরু। তারা তাদের জীবনে প্রায় পুরোটা সময় ইসলামিক শরিয়াহ্ মোতাবেক জীবন যাপন করে আসছেন। তাদের অর্জিত অর্থ সুদ মুক্ত ও হালাল পন্থায় জামায়াত করার জন্য নগদ কমিটি চালু করেছে নগদ ইসলামিক একাউন্ট।

আরও পড়ুনঃ

নগদ ইসলামিক একাউন্ট এবং কিভাবে আপনি নগদ ইসলামিক একাউন্ট খুলবেন সেই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে আজকের এই পোস্টটিতে। তাই ধৈর্য সহকারে আজকের পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন এবং ইসলামিক একাউন্ট সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন?

নগদ ইসলামিক একাউন্ট কি?What is a Nagad Islamic account?

শরিয়াসম্মত নগদ ইসলামিক একাউন্ট সম্পূর্ণ সুদবিহীন। আমাদের দেশের সকল ধর্মপ্রাণ মুসলমান ভাইদের জন্য এই নগদ ইসলামিক একাউন্ট। নগদ ইসলামিক একাউন্টে গ্রাহকের জমানো টাকার পরিমাণের উপর কোন প্রকার সুদ ধার্য করা হবে না। নগদ ইসলামিক একাউন্ট শরিয়াহ কমিটির তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে। যা খুব সহজেই গ্রাহকের কাছে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পৌঁছে দেবে।

ইসলামিক দৃষ্টিকোণ থেকে বাংলাদেশের সর্বপ্রথম সুদবিহীন লেনদেন সেবা নিশ্চিত করেছে ডাক বিভাগের ডিজিটাল লেনদেন নগদ।

আরও পড়ুনঃ  টেলিটক নাম্বার দেখার উপায় ২০২৩

নগদ ব্যবহারে যে কোন গ্রাহক নগদ একাউন্ট খোলার সময় নগদ ইসলামিক ক্যাটাগরিতে একাউন্ট খুলতে পারবেন। এবং নগদ ব্যবহারের গ্রাহক চাইলেই যে কোন সময় তারা রেগুলার নগদ একাউন্ট থেকে নগদ ইসলামিক একাউন্টে পরিবর্তন করতে পারবেন।

নগদ ইসলামিক একাউন্টের সুবিধা | The benefits of a Nagad Islamic account.

ইসলামিক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে বিভিন্ন প্রকার সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন। যেমন:

  • নগদ ইসলামিক একাউন্টের মাধ্যমে মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস এর সকল শরিয়াহ সম্মত সার্ভিস এবং সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন।
  • নগদ ইসলামিক অ্যাকাউন্টে থাকা কালিন গ্রাহক তার জমানো টাকার পরিমাণে কোন প্রকার মুনাফা পাবেন না।
  • ইসলামিক একাউন্ট থেকে যাকাত/ডোনেশন দেওয়ার ক্ষেত্রে গ্রাহকের কোন প্রকার লিমিট থাকবে না। তবে নগদ একাউন্টে লিমিট প্রযোজ্য হবে।
  • নগদ ব্যবহারের গ্রাহক চাইলেই তার একাউন্টটিকে নগদ ইসলামিক একাউন্টে পরিবর্তন করতে পারবেন।
  • তবে গ্রাহক প্রতিমাসে ১ বার একাউন্টের ধরন পরিবর্তন করতে পারবে।
  • ইসলামিক একাউন্ট এর যাবতীয় সুবিধা পেতে হলে অবশ্যই আপনার নগদ একাউন্ট ইসলামিক একাউন্টে পরিবর্তন করতে হবে।
  • নগদ ইসলামিক অ্যাকাউন্টটি অ্যাপে ব্যবহারের ক্ষেত্রে ইংরেজি এবং বাংলা সংস্করণে ব্যবহার করতে পারবেন।

নগদ থেকে নগদ ইসলামিক একাউন্টে পরিবর্তন করার নিয়ম

সাধারণ নগদ একাউন্ট থেকে ইসলামিক একাউন্টের পরিবর্তন করার জন্য প্রথমেই আপনাকে নগদ অ্যাপ ব্যবহার করতে হবে।

  • নগদ অ্যাপ টি ইনস্টল করে আপনার মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে নগদ অ্যাপ এ প্রবেশ করে।
  • “My nagad” নগদ অপশনে ক্লিক করতে হবে।
  • তারপর “Account type” অপশন এ ক্লিক করে। আপনার নগদ একাউন্টের ধরন পরিবর্তন করে।
  • নগদ ইসলামিক একাউন্ট সিলেক্ট করতে হবে। তারপর আপনার সামনে একটি পপ-আপ স্কিন আসবে সেখানে হ্যাঁ অথবা না লেখা থাকবে।
  • আপনি যদি নগদ থেকে নগদ ইসলামিক একাউন্টে পরিবর্তন করতে চান তাহলে ????হ্যাঁ ক্লিক করবেন।
  • তারপর অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই আপনার নগদ একাউন্টে নগদ ইসলামিক একাউন্টে পরিবর্তন হয়ে যাবে। মনে রাখবেন, (আপনার নগদ একাউন্টের ধরন প্রতিমাসে মাত্র ১ পরিবর্তন করতে পারবেন)
আরও পড়ুনঃ  বিকাশ থেকে রিচার্জ করার নিয়ম ২০২২

এই ছিল নগদ থেকে নগদ ইসলামিক একাউন্টে পরিবর্তন করার সম্পূর্ণ পদ্ধতি। এখন আপনি যদি চান আপনার নগদ একাউন্টে মুনাফা বিহীন টাকা রাখতে তাহলে আপনি এই সার্ভিসটি চালু করে সুদবিহীন টাকা জমা করতে পারেন।

শেষ কথা

আজকের পোস্টে নগদ ইসলামিক একাউন্ট কি | নগদ ইসলামিক একাউন্টের সুবিধা ও অসুবিধা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি আজকের পোস্ট থেকে আপনারা সবাই বুঝতে পেরেছেন। কেউ কিছু না বুঝে থাকলে কমেন্ট বক্সে জানাবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

3.5/5 - (2 votes)

1 thought on “নগদ ইসলামিক একাউন্ট কি | নগদ ইসলামিক একাউন্টের সুবিধা ও অসুবিধা”

Leave a Comment