বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি

বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি– আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক বৃন্দ, কেমন আছেন সবাই। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আপনি কি বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? তাহলে আজকের পোস্টটি আপনার জন্য। আজকে আমি শেয়ার করব বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি তা নিয়ে। আশা করি সবাই মনোযোগ সহকারে পড়বেন।

অন্যান্য দেশীয় শিল্পের তুলনায় বাংলাদেশের ওষুধ শিল্প জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।  বর্তমানে, এই শিল্প বাংলাদেশের ঔষুধের চাহিদার 98% পূরণ করে।  ফার্মাসিউটিক্যাল শিল্প বিশ্বের 160 টিরও বেশি দেশে ওষুধ সরবরাহ করছে।

বাংলাদেশের ওষুধ শিল্পের অভ্যন্তরীণ বাজার প্রায় 13,000 কোটি টাকা এবং আন্তর্জাতিক বাজার 650 কোটি টাকার বেশি।  বাংলাদেশে ঔষুধ শিল্পের বৃদ্ধির হার ৯%-এর বেশি।  বর্তমানে বাংলাদেশে ২৬৯টিরও বেশি ছোট-বড় ওষুধ কারখানা রয়েছে যার মধ্যে ১৬৯টি কারখানায় নিয়মিত ঔষুধ তৈরি হচ্ছে।

বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষ মেডিকেল স্টোরে গিয়ে যে কোনো কোম্পানির ওষুধ কেনেন।  তারা জানে না কোন কোম্পানির ওষুধ ভালো।  এখানে আমরা আপনাকে বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি সম্পর্কে বলব যা আপনাকে সেরা ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি সম্পর্কে জানতে সাহায্য করবে।

বাংলাদেশের শীর্ষ 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি
বাংলাদেশও সারা দেশে এই সেবা দিচ্ছে।  আজ, আমি “বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি” সম্পর্কে কথা বলছি যেগুলি আপনাকে অনলাইন ডাক্তার, আপনার গুরুতর স্বাস্থ্য পরিস্থিতি এবং প্রয়োজনীয় সময়ে ফোনে পরামর্শ দেয়।

বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি

01. স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, স্কয়ার গ্রুপের শীর্ষস্থানীয় কোম্পানি বাংলাদেশের সেরা ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি।  কোম্পানিটি 1958 সালে যাত্রা শুরু করে এবং এখন বাংলাদেশ সহ বিশ্বের অনেক দেশে উচ্চ কর্মক্ষমতা প্রদান করছে।  স্যামসন এইচ চৌধুরী তার তিন বন্ধুর সহায়তায় কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠা করেন।

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস 1987 সাল থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে বিভিন্ন অ্যান্টিবায়োটিক এবং ওষুধ রপ্তানি শুরু করে। বর্তমানে এটি ইউরোপ, এশিয়া, মধ্য আমেরিকা, আফ্রিকা, দক্ষিণ আমেরিকা এবং অস্ট্রেলিয়া সহ বিশ্বের অনেক দেশে এর ওষুধ রপ্তানি করে।  কোম্পানির প্রায় 7390 জন কর্মচারী রয়েছে।

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের লক্ষ্য হল ন্যায্য মূল্যে জনগণের কাছে উচ্চমানের এবং স্বাস্থ্যকর ওষুধ সরবরাহ করা।  তারা ব্যবসায়িক ব্যবস্থাপনায় এবং শেয়ারহোল্ডার, স্টেকহোল্ডার এবং সমাজের সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য নিয়ম ও প্রবিধানের যথাযথ আনুগত্য বজায় রাখার চেষ্টা করে।

আরও পড়ুনঃ  টেলিটক নাম্বার দেখার উপায় ২০২৩

02. ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড

ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি।  কোম্পানিটি ১৯৯৯ সালে ঢাকায় যাত্রা শুরু করে। আবদুল মুক্তাদির কোম্পানির চেয়ারম্যান।  কোম্পানিটি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা থেকে যথাক্রমে ৩৫ ও ৫৩ কিলোমিটার দূরে সাভার ও ধামরাইয়ে প্রচুর পরিমাণে ঔষুধ তৈরি করে।

কোম্পানিটি বাংলাদেশের গ্রামীণ ও শহরের প্রতিটি এলাকায় তাদের পণ্য পৌঁছে দিচ্ছে।  ইনসেপ্টার 23টি বড় ডিপো রয়েছে যার মাধ্যমে তারা সারা দেশে পণ্য বিতরণ করে।  কোম্পানিটি বিশ্বের 67টি দেশে তার তৈরি ঔষুধ সরবরাহ করে।

ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড সাধারণত ক্যাপসুল, ট্যাবলেট, নাকের স্প্রে, চোখের ড্রপ, লোশন, জেল, ক্রিম, অ্যাম্পুলস, সাসপেনশনের জন্য পাউডার, শুকনো পাউডার শিশি, হিউম্যান ভ্যাকসিন এবং লাইওফিলাইজড ইনজেকশন ইত্যাদির মতো বিভিন্ন ধরনের ঔষুধ তৈরি করে।  ইনসেপ্টা তার নতুন এবং উদ্ভাবনী পণ্যের মাধ্যমে বাংলাদেশের চিকিৎসা সম্প্রদায়ের অপরিবর্তনীয় চাহিদা মেটাতে কাজ করে যাচ্ছে।

03. বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লি.

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড হল বেক্সিমকো গ্রুপের ফ্ল্যাগশিপ কোম্পানি যা বাংলাদেশে বেক্সিমকো ফার্মা নামেও পরিচিত।  কোম্পানিটি 1976 সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং 1980 সালে এর কার্যক্রম শুরু করে। কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান পাপন।  কোম্পানির উৎপাদন কারখানাটি রাজধানী ঢাকার কাছে অবস্থিত যা 22 একর এলাকা জুড়ে রয়েছে।

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড বিভিন্ন ধরনের ডোজ ফর্ম তৈরি করে যার মধ্যে রয়েছে ক্যাপসুল, ট্যাবলেট, তরল, ক্রিম, ইন্ট্রাভেনাস ফ্লুইড, সাপোজিটরি, মলম, চক্ষু ড্রপস, মিটারড-ডোজ ইনহেলার, জীবাণুমুক্ত চক্ষু, প্রিফিলড সিরিঞ্জ, লাইওফিলাইজড, বড় আকারের লাইওফিলাইজার ইত্যাদি।  .

কোম্পানিটি বর্তমানে 500 টিরও বেশি পণ্য উত্পাদন করে যা বিস্তৃত থেরাপিউটিক সেগমেন্টগুলিকে কভার করে এবং উচ্চ-প্রযুক্তির বিশেষ পণ্য সরবরাহ করে।  কোম্পানির উৎপাদিত ওষুধগুলি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল এবং কানাডার নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ দ্বারা স্বীকৃত হয়েছে এবং এখন বিশ্ব বাজারে অনেক সাফল্যের সাথে এগিয়ে যাচ্ছে।

04. অপসোনিন ফার্মা লি.

অপসোনিন ফার্মা লিমিটেড বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় এবং আধুনিক ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি।  কোম্পানিটি 1956 সালে যাত্রা শুরু করে। কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা আব্দুল খালেক খান।  বাংলাদেশে ঔষুধ বিক্রির দিক থেকে অপসোনিনের অবস্থান চতুর্থ।  কোম্পানি উৎপাদন কারখানাটি কৃততনখোলা নদীর তীরে অবস্থিত যা 500 একর জমি জুড়ে রয়েছে।

কোম্পানিটি তার উচ্চ যোগ্য, দক্ষ এবং পেশাদার কর্মসংস্থান এবং আধুনিক যন্ত্রপাতি দ্বারা দেশের স্বাস্থ্যসেবা খাতে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছে।  সংস্থাটি বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্যসেবা খাতে অবদান রাখতেও সচেষ্ট।  বর্তমানে, 670টি SKU ফার্মাসিউটিক্যাল ফিনিশড পণ্য হিসেবে ব্যবহার করে অপসোনিন 270টি ব্র্যান্ড তৈরি করেছে।

আরও পড়ুনঃ  বিকাশ কাস্টমার কেয়ার নাম্বার। Bkash Live Chat

05. রেনেটা লিমিটেড

রেনেটা লিমিটেড বাংলাদেশের একটি নেতৃস্থানীয় এবং পরিচিত ফার্মাসিউটিক্যাল এবং পশু স্বাস্থ্য পণ্য কোম্পানি।  কোম্পানিটি 1972 সালে ফাইজার লিমিটেড হিসাবে তার প্রস্থান শুরু করে। সাইদ এস কায়সার কবির এই কোম্পানির সিইও।  1993 সালের পর, ফাইজার লিমিটেড বাংলাদেশের স্থানীয় শেয়ারহোল্ডারদের কাছে তার মালিকানা হস্তান্তর করে এবং কোম্পানির নতুন নামকরণ করে রেনেটা লিমিটেড।

রেনেটা লিমিটেড বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি।  কোম্পানী পশু স্বাস্থ্য পণ্য ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করার জন্য একটি খ্যাতি অর্জন, কোম্পানি তিনটি উৎপাদন সাইটের মাধ্যমে তার দশটি উৎপাদন কারখানার মাধ্যমে পণ্য তৈরি করে।  রেনেটার 19টি বড় ডিপো রয়েছে যার মাধ্যমে তারা সারা দেশে পণ্য বিতরণ করে।  তারা বর্তমানে কম্বোডিয়া, ইথিওপিয়া, গায়ানা, আফগানিস্তান, বেলিজ, ফিলিপাইন, শ্রীলঙ্কা, হন্ডুরাস, হংকং, কেনিয়া, থাইল্যান্ড, যুক্তরাজ্য, মালয়েশিয়া, মায়ানমার এবং ভিয়েতনামে তাদের পণ্য রপ্তানি করছে।

06. Eskayef ফার্মাসিউটিক্যালস লি.

Eskayef ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড. এছাড়াও SK+F নামে পরিচিত বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানি।  এই কোম্পানির স্বত্বাধিকারী ট্রান্সকম গ্রুপ।  কোম্পানিটি 1990 সালে যাত্রা শুরু করে। জনাব লতিফুর রহমান এই কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান।  সিমিন হোসেন কোম্পানিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা।

এসকায়েফের স্লোগান হচ্ছে “গুণমানের মাধ্যমে শ্রেষ্ঠত্ব”।  কোম্পানিটি বিভিন্ন ধরনের পণ্য যেমন ফার্মাসিউটিক্যালস ফিনিশড প্রোডাক্ট, বাল্ক পেলেটস এবং অ্যানিমাল হেলথ অ্যান্ড নিউট্রিশন প্রোডাক্ট উৎপাদন করে।  কোম্পানির লক্ষ্য হল যুক্তিসঙ্গত মূল্যে মানসম্পন্ন পণ্য উৎপাদন ও সরবরাহ করা।  কোম্পানিটি বাংলাদেশের গ্রামীণ ও শহুরে প্রতিটি ক্ষেত্রে পণ্যের চাহিদা মেটাচ্ছে।  কোম্পানিটি এশিয়া, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া এবং আফ্রিকা সহ ৪টি উপমহাদেশের ৩০টিরও বেশি দেশে পণ্য রপ্তানি করে।

07. ACME ল্যাবরেটরিজ লি.

ACME ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড বাংলাদেশের একটি স্বনামধন্য ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি।  কোম্পানিটি ACME গ্রুপের অন্তর্গত।  ACME 1954 সালে যাত্রা শুরু করে। কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হলেন মিজানুর রহমান সিনহা এবং কোম্পানির চেয়ারপারসন হলেন নাগিনা আফজাল সিনহা।  বিশ্বমানের ও উচ্চমানের ওষুধ উৎপাদনের জন্য কোম্পানিটি বাংলাদেশে অনেক সুনাম অর্জন করেছে।

বর্তমানে, কোম্পানিটি 500 টিরও বেশি ধরনের ডোজ তৈরি করে যার মধ্যে রয়েছে কার্ডিওভাসকুলার, গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল, অ্যান্টি-ইনফেকটিভ, সিএনএস, অ্যান্টি-ডায়াবেটিকস এবং শ্বাসযন্ত্রের রোগ ইত্যাদি। স্থানীয় বাজারে ন্যায্য মূল্যে পণ্য সরবরাহ করা কোম্পানিটিকে সক্ষম করেছে।  খুব সহজেই আন্তর্জাতিক বাজারে নিজেকে অবস্থান করতে।  প্রতিষ্ঠানটি তার দক্ষ ও পেশাদার কর্মীদের মাধ্যমে বিশ্বের অন্যান্য দেশসহ বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবার চাহিদা মেটানোর চেষ্টা করছে।  কোম্পানিটি বেশ কয়েক বছর ধরে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, মধ্য আমেরিকা এবং আফ্রিকায় সুনামের সাথে তার পণ্য রপ্তানি করে আসছে।

আরও পড়ুনঃ  নগদ ইসলামিক একাউন্ট কি | নগদ ইসলামিক একাউন্টের সুবিধা ও অসুবিধা

08. ACI ফার্মাসিউটিক্যালস

এসিআই লিমিটেড বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম এবং শীর্ষস্থানীয় ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি।  কোম্পানিটি ১৯৯২ সালে এসিআই লিমিটেড নামে যাত্রা শুরু করে। কোম্পানির চেয়ারম্যান জনাব এম আনিস উদ দৌলা এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. আরিফ দৌলা।  ACI বা অ্যাডভান্সড কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ তার চারটি রিপোর্টযোগ্য সেগমেন্ট যেমন ফার্মাসিউটিক্যালস, কনজিউমার ব্র্যান্ড, কৃষি ব্যবসা এবং খুচরা চেইন শপগুলির মাধ্যমে কাজ করে।

প্রায় তিন দশক ধরে, এসিআই লিমিটেড উদ্ভাবনী এবং নির্ভরযোগ্য ফার্মাসিউটিক্যাল পণ্য উৎপাদন করে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ওষুধ কোম্পানিগুলোর মধ্যে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছে।  বর্তমানে, কোম্পানিটি সারা দেশে 5000 জনেরও বেশি লোক নিয়োগ করছে।  ACI বাংলাদেশের প্রথম কোম্পানি যেটি 1995 সালে প্রথম ISO 9001 সার্টিফাইড কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের ধারণা চালু করেছিল।

09. অ্যারিস্টোফার্মা লি.

অ্যারিস্টোফার্মা লিমিটেড বাংলাদেশের সবচেয়ে সুপরিচিত ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিগুলির মধ্যে একটি।  কোম্পানিটি 1986 সালে তাদের যাত্রা শুরু করে। কোম্পানিটি তার সূচনা থেকেই দেশের জনগণকে ন্যায্য মূল্যে উদ্ভাবনী এবং নির্ভরযোগ্য পণ্য সরবরাহ করে আসছে।

ঢাকার কেন্দ্রীয় শহর থেকে 10 কিলোমিটার দূরে শ্যামপুর-কদমতলী I/A এ অবস্থিত অ্যারিস্টোফার্মা উৎপাদন কারখানা।  কোম্পানির কারখানা উন্নত প্রযুক্তি এবং আধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে সজ্জিত যা স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক ঔষুধের চাহিদা মেটাতে পারে।  অ্যারিস্টোফার্মা লিমিটেড বিভিন্ন ধরনের ডোজ ফর্ম তৈরি করে যার মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিপাইরেটিক, ভিটামিন ও খনিজ, অ্যান্টিবায়োটিক, এনএসএআইডি, অ্যান্টি-আলসারেন্ট, স্টেরয়েড, অ্যান্টিস্পাসমোডিক্স, কার্ডিওভাসকুলার, অ্যান্টিডায়াবেটিক, অ্যান্টিসাইকোটিক, অ্যান্টিমেটিকস, অ্যান্টিসেপটিক্স এবং আরও অনেক কিছু।

10. ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড

ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড বাংলাদেশের শীর্ষ 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানির একটি।  কোম্পানিটি 1974 সালে যৌথ-স্টক কোম্পানি রেজিস্টারের অধীনে একটি প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি হিসাবে সংগঠিত হয়েছিল।  পরবর্তীতে 1983 সালে, কোম্পানিটি বাংলাদেশে মৌখিক সলিড ডোজ প্ল্যান্টের মাধ্যমে নিজেকে পরিচয় করিয়ে দেয়।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে, ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের উদ্দেশ্য হল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উৎপাদন নির্দেশিকাগুলির মতো প্রধান আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলিকে কঠোরভাবে মেনে চলার মাধ্যমে উচ্চ-মানের পণ্য উৎপাদন করা।  কোম্পানিটি বাংলাদেশে প্রথম যারা ভিটামিনের মতো বিশেষ শোষণ এবং ধারণ ক্ষমতা সহ নরম ক্যাপসুল তৈরি করে।  ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড বিভিন্ন ধরনের ডোজ ফর্ম তৈরি করে যার মধ্যে সিরাপ, সাসপেনশন, নরম জেলটিন ক্যাপসুল, ক্যাপসুল, ট্যাবলেট, ক্রিম, সাপোজিটরি এবং মলম রয়েছে।

শেষ কথা

আজকের পোস্টে বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আশা করি আপনাদের সবার কাছে ভালো লেগেছে। পোস্টটি ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

Rate this post

2 thoughts on “বাংলাদেশের সেরা 10টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি”

Leave a Comment