ফেসবুক থেকে ইনকাম করার উপায় ২০২২

সময়ের সাথে সাথে মানুষ আধুনিক হয়েছে।  মানুষ প্রতিনিয়ত নিজেকে সাজিয়ে নিচ্ছে নতুন নতুন আঙ্গিকে।  প্রযুক্তির ব্যবহার তাদের জীবনকে করেছে সহজ, সরল, মসৃণ।  প্রযুক্তির ব্যবহার মানুষের কর্মকাণ্ডের গতি বাড়িয়ে দিয়েছে।  বর্তমানে, লোকজন তাদের কাজে প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে এখন ঘরে বসে জীবিকা অর্জনের উপায় খুঁজে পাচ্ছে।

  আমরা অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করি।  আমরা কেউ ফেসবুক দেখি, কেউ ইউটিউব দেখি, কেউ খবর দেখি, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করি সব ধরনের খবর পেতে।  তাই ফেসবুক থেকে অর্থ উপার্জনের কিছু উপায় বের করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

  আজকাল মানুষ দিনের বেশির ভাগ সময় কাটায় ফেসবুকের মাধ্যমে।  ফেসবুক আমাদের একটি পরিবার হিসেবে গড়ে তুলেছে।  আপনি ঘরে বসে যে কোনও জায়গা থেকে মানুষের সাথে কথা বলতে পারেন।  ফেসবুকের মাধ্যমে কল করা যাবে, ভিডিও কল করা যাবে এবং তথ্য আদান-প্রদান করা যাবে।  ফেসবুক ব্যবহারের দিক থেকে অন্য সব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটু এগিয়ে।  নিচে ফেসবুক থেকে আয় করার কিছু উপায় দেওয়া হল।

  ফেসবুক মার্কেটপ্লেস থেকে অর্থ উপার্জন করুন

  প্রথমে আমরা জানবো কিভাবে আমার ফেসবুক মার্কেটপ্লেস থেকে অর্থ উপার্জন করতে হয়।  ফেসবুকের মাধ্যমে আপনি মার্কেটপ্লেসে বিভিন্ন পণ্যের তালিকা তৈরি করে ক্রেতা বৃদ্ধি করে মুনাফা করতে পারবেন।  আপনি ঘরে বসে আপনার মোবাইলে ফেসবুকে সময় নষ্ট না করে মার্কেটপ্লেস থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

  ফেসবুক মার্কেটপ্লেসে পোস্ট করার জন্য আপনার নিজের ফেসবুক আইডি প্রয়োজন।  ফেসবুক আইডি থেকে মার্কেটপ্লেসে আপনার পণ্যের তালিকা জমা দিতে পারবেন।  আপনি যদি কিছু বিক্রি করতে চান তবে আপনি বাড়িতে বসেই মার্কেটপ্লেসের মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষকে বিজ্ঞাপনটি দেখাতে পারবেন।  যদি কেউ আপনার পণ্য কিনতে চায়, তারা সরাসরি ফেসবুকের মাধ্যমে আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।

  ফেসবুক মার্কেটপ্লেসে এমন একটি মাধ্যম যেখানে বিভিন্ন নতুন ও পুরাতন পণ্যের দামসহ বিস্তারিত তথ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়।

  সেখান থেকে আপনার নিজস্ব কোনো পণ্য থাকলে তা মার্কেটপ্লেসে উপস্থাপন করলে সবাই পণ্য সম্পর্কে জানতে পারবে এবং আপনার পণ্য নিতে আগ্রহী হবে।  এক্ষেত্রে আপনি মার্কেটপ্লেস থেকে আপনার পণ্য বিক্রি করে আপনার আয় বাড়াতে পারবেন।

  আমরা বলতে পারি যে ফেসবুকে মার্কেটপ্লেস থেকে অর্থ উপার্জন করা খুব সহজ।  তবে মনে রাখবেন, অনলাইনে অর্থ উপার্জনের মূল চাবিকাঠি হল কম দাম এবং চাহিদা।  আপনি যদি পণ্যের চাহিদা অনুযায়ী মার্কেটপ্লেসে বিশদ বিবরণ সহ একটি তালিকা তৈরি করেন তবে আপনি সহজেই ফেসবুকে মার্কেটপ্লেস থেকে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ  পড়ালেখার পাশাপাশি কিভাবে টাকা ইনকাম করবেন। বিস্তারিত...

  ফেসবুক একাউন্ট খুলে ইনকাম করুন

  আপনি একটি ফেসবুক একাউন্ট খুলে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।  তবে এই ইউজার আইডি দিয়ে আমরা সাধারণত যে ফেইসবুক আইডি ব্যবহার করি তা ফেসবুক আয় করতে পারে না।  কারণ ফেসবুক ব্যবহারকারীর একাউন্ট থেকে সরাসরি অর্থ উপার্জনের কোনো উপায় নেই।

  আপনার যদি কোনো ধরনের ব্যক্তিগত ব্লগ থাকে, তাহলে আপনি ফেসবুক থেকে আপনার ব্লগের ভিজিটর বৃদ্ধি করে সেই ব্লগের পোস্ট আপনার আইডিতে ফেসবুক একাউন্টে শেয়ার করে ব্লগের আয় বাড়াতে পারবেন।  আমরা জানি যে ফেসবুকে পাঁচ হাজারের বেশি বন্ধু যোগ করা যা না।  সেক্ষেত্রে আমরা ফেসবুকে ব্লগ পোস্ট আপলোড করে ব্লগের ভিজিটর বাড়িয়ে আমাদের আয় বাড়াতে পারি।

  আমরা অকারণে ফেসবুকে অনেক সময় নষ্ট করি।  সেক্ষেত্রে আমরা যদি ব্লগের পোস্টগুলো ফেসবুকে আপলোড করে ব্লগের ভিজিটর বাড়াই, তাহলে ব্লগ থেকে আমাদের আয় বাড়বে।  এভাবে আমরা ফেসবুকে একাউন্ট খুলে টাকা আয় করতে পারি।

  আপনি ফেসবুক পেজ থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন

  আমরা এখন জানবো কিভাবে ফেসবুক পেজ থেকে টাকা ইনকাম করা যায়।  আপনি একটি ফেসবুক একাউন্ট দিয়ে একটি ফেসবুক পেজ খুলে অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।  ফেসবুক প্রোফাইলে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠানো যাবে, রিকোয়েস্ট একসেপ্ট করা যাবে, পেজে এমন কিছু হয় না।  যে কেউ পেইজে লাইক দিলে সেটি ফলো করতে পারেন এবং নিজের নামে পেজ খুলে সেই পেজের লাইক বাড়াতে পারেন।

  আপনার যদি একটি ফেসবুক পেজ থাকে এবং এতে আপনার প্রচুর ফলোয়ার বা লাইক থাকে, তাহলে আপনি সহজেই আপনার ফেসবুক পেজ ব্যবহার করে বিভিন্ন উপায়ে ফেসবুক থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

  ফেসবুক পেজ থেকে অর্থ উপার্জন করার জন্য, আপনাকে আপনার নিয়মিত পোস্ট ফেসবুক পেজে প্রকাশ করতে হবে এবং পেজে সময় ব্যয় করতে হবে।  আপনি একটি পেজ তৈরি না করে আয় করতে পারবেন না, তাই আপনাকে প্রতিদিন এর পিছনে কিছু সময় ব্যয় করতে হবে।  তাহলে আপনি টাকা আয় করতে পারবেন।

  অর্থ উপার্জন করার জন্য, প্রথমে আপনাকে পেজে ফলোয়ার এবং লাইকের সংখ্যা বাড়াতে হবে।  ফেসবুকে যেকোনো কাজের মাধ্যমে ফেসবুক পেজের লাইক বাড়ালেই।  তাহলে ফেসবুক থেকে আয় করার পথ আপনার জন্য অনেক সহজ হয়ে যাবে।

  ফেসবুক পেজ খোলার পর আপনার প্রথম কাজ হবে ফেসবুকের লাইক এবং ফলোয়ার বাড়ানো।  তবে ফেসবুকে লাইক ও ফলোয়ার এমন হবে না, তাই এর পেছনে সময় দিতে হবে।  পেজের লাইক ফলোয়ার বাড়াতে পারলে সহজেই আয়ের উপায় বের করতে পারবেন।

  ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে অর্থ উপার্জন করুন

  এখন আমি আপনাদের সাথে আরেকটি পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করব তা হল ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে অর্থ উপার্জন করা।  এখন ইউটিউবের মতো ভিডিও আপলোড করে ফেসবুকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।  তবে ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করার কিছু উপায় আছে।  আপনি যদি এই পদ্ধতিগুলি অনুসরণ করেন তবে আপনি ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ  ফেসবুক থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়

   Facebook নগদীকরণের এই নতুন পদ্ধতির নাম “ফেসবুক ভিডিও মনিটাইজেশন বা ইন-স্ট্রীম বিজ্ঞাপন। ইন-স্ট্রীম বিজ্ঞাপন বা ভিডিও নগদীকরণের জন্য কিছু নিয়ম বা যোগ্যতা রয়েছে, যা ফেসবুক পেজে ভিডিও আপলোড করে ফেসবুক থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

  ফেসবুক ভিডিও মনিটাইজেশন কি?

  Facebook ভিডিও নগদীকরণ একটি পরিষেবা যা আপনাকে Facebook পেজে আপলোড করা ভিডিওগুলিতে বিজ্ঞাপন দেখানোর অনুমতি দেয়।  লোকেরা যখন এই বিজ্ঞাপনগুলি দেখে বা ক্লিক করে তখন আপনি Facebook থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন৷  যাইহোক, আপনি Facebook পেজগুলো ছাড়া অন্য কোথাও FacebookVideo নগদীকরণ বিজ্ঞাপনগুলি ব্যবহার করতে পারবেন না৷

  Facebook ভিডিও মনিটাইজেশন সার্ভিস ব্যবহার করতে আপনার Facebook পেজের কিছু যোগ্যতা লাগবে।  আপনার Facebook পেজে নিম্নলিখিত যোগ্যতা না থাকলে, আপনি ভিডিওতে ভিডিও মনিটাইজেশন ব্যবহার করতে পারবেন না।

  ফেসবুক মনিটাইজেশন পেতে যা লাগে

  Facebook নগদীকরণের জন্য যে বিষয়গুলো প্রয়োজন সেগুলো আমরা আলোচনা করব।  Facebook নগদীকরণের জন্য নিম্নলিখিত কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি রয়েছে:

  1. আপনার নিজের ফেসবুক পেজ থাকতে হবে।  নগদীকরণের বিজ্ঞাপনের ভিডিও ফেসবুক পেজ ছাড়া অন্য কোথাও পোস্ট করা যাবে না।

  2. Facebook এর অংশীদারদের অবশ্যই নগদীকরণ নীতি অনুসারে ভিডিও তৈরি করতে হবে৷

  3. যদি আপনার ভিডিওর ভাষা Facebook নগদীকরণ সমর্থন না করে, তাহলে ভিডিও আপলোড করলে ভিডিওটি নগদীকরণ হবে না।  তবে টেনশনের কোনো কারণ নেই, ফেসবুক মনিটাইজেশন বাংলা ভাষাকে সমর্থন করে।

  4. আপনার বয়স কমপক্ষে 18 বছর হতে হবে।

  5. গত 60 দিনে, আপনার Facebook পেজের ভিডিওটি ন্যূনতম 30,000 ভিউ থাকতে হবে এবং প্রতিটি ভিউর ন্যূনতম 1 মিনিট থাকতে হবে৷  উপরন্তু, আপনার প্রতিটি ভিডিও কমপক্ষে 3 মিনিট দীর্ঘ হতে হবে।  কারণ ফেসবুক 3 মিনিটের ছোট ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেখায় না। আপনার ফেসবুক পেজে 10,000 লাইক থাকতে হবে।

  কিভাবে ফেসবুক পেজের লাইক বাড়ানো যায়

  মধ্যস্থতার জন্য প্রস্তুতির প্রক্রিয়া শুরু করতে আপনি বেশ কিছু পদক্ষেপ নিতে পারেন।  এই পদ্ধতি অনুযায়ী কাজ করলে আশাকরি আপনার ফেসবুক পেজে লাইক ফলোয়ার বেরিয়ে আসবে।  নিচে আমি পেজে লাইক ফলোয়ার বাড়ানোর পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করছি।

  1. টপিক শিডিউলিং: টপিক শিডিউলিং বলতে আপনি ফেসবুকে কাজ করবেন এমন বিষয়গুলিকে বোঝায়।  আপনি ফেসবুকে যেকোনো বিষয়ে কাজ করতে পারেন, তবে আপনি যে বিষয়ে কাজ করবেন তা অবশ্যই প্রথমে হাইলাইট করতে হবে।

  আপনি ভালো জানেন এমন একটি বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন।  সেক্ষেত্রে আপনার লাইক ফলোয়ার বাড়বে।  আমরা যখন ফেসবুকে যাই, দেখি যারা মজার বিষয় নিয়ে লেখেন তাদের অনেক ফলোয়ার আছে।  আপনি চাইলে এই টপিকটি দেখতে পারেন এবং যেকোনো বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন।  তাহলে তাদের মত আপনার লাইক ফলোয়ার বাড়বে।

আরও পড়ুনঃ  ফেসবুক থেকে টাকা আয় করুন ৮ টি উপায়ে বাংলাদেশ থেকে | How To Earn Money From Facebook

  যেমন কবিতা, উপন্যাস, গল্প, ফ্যাশন, প্রযুক্তি, লাইফস্টাইল ইত্যাদি নিয়ে লেখা সহজেই জনপ্রিয়তা পায়।  তাছাড়া আপনি যদি একজন গৃহিণী হয়ে থাকেন তাহলে বিভিন্ন রেসিপি, ফ্যাশন ও ডিজাইন নিয়ে লেখা বা ভিডিও করে ফেসবুক পেজের লাইক বাড়াতে পারেন।

  2. ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলুন: যাদের ফেসবুক ফলোয়ার আছে তাদের সাথে আপনাকে ভালোভাবে যোগাযোগ করতে হবে।  আপনাকে তাদের সাথে যোগাযোগ রাখতে হবে এবং তাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতে হবে।

  যখন তারা আপনার পোস্টে মন্তব্য করেন, তখন তাতে সাড়া দিন।  মন্তব্যে লেখার কিছু না থাকলে, ধন্যবাদ বা স্বাগতম বলুন।  যারা আপনাকে ফেসবুকে ব্যক্তিগতভাবে ম্যাসেজ করবে তাদের সাথেও আপনাকে ভালোভাবে যোগাযোগ করতে হবে।  তাহলে আপনি খুব অল্প সময়ে আপনার পেজের লাইক ফলোয়ার বাড়াতে পারবেন।

  3. পেজে নিয়মিত পোস্ট প্রকাশ করুন: আপনি যদি আপনার ইচ্ছামত সময়ে সময়ে পোস্টগুলি শেয়ার করেন তবে আপনি অল্প সময়ের মধ্যে ফ্যান ফলোয়িং বাড়াতে পারবেন না।  কারণ যারা আপনার পাঠক হবেন তারা অবশ্যই আপনাকে নিয়মিত দেখতে চাইবেন।

  এক্ষেত্রে মাঝে মাঝে পোস্ট করলে পাঠক সেসব পোস্ট এড়িয়ে যাবেন।  এজন্য আপনাকে নিয়মিত পোস্ট করতে হবে যাতে দ্রুত ফেসবুক পেজের লাইক বাড়ানো যায়।  আপনি যদি নিয়মিত পেজে পোস্ট করেন, পাঠকরা নিয়মিত আপনার পোস্ট দেখতে পাবেন।  আর লাইক ফলোয়ার বাড়তে থাকবে।

  তাই লাইক ফলোয়ার বাড়াতে আপনাকে নিয়মিত পেজে পোস্ট করতে হবে এবং পোস্টে কেউ কমেন্ট করলে উত্তর দিতে হবে।  তাই বলা যায় পেজে নিয়মিত পোস্ট করাও পেজের লাইক ফলোয়ার বাড়ানোর একটি গুরুত্বপূর্ণ উপায়।

  4. বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিন: বর্তমানে ফেসবুকে হাজার হাজার গ্রুপ রয়েছে যেগুলো খুবই জনপ্রিয়।  আপনি সেই গ্রুপে যোগ দেবেন।  জয়েন করার পর, সময়ে সময়ে আপনার কিছু লেখা পোস্ট করুন এবং নীচে আপনার পেজের লিঙ্ক শেয়ার করুন।

  শেয়ার করার পর আপনার পেইজে লাইক ও ফলো করার অনুরোধ রইল।  এইভাবে আপনি আপনার পেজে লাইক ফলোয়ারের সংখ্যা বাড়াতে পারবেন।

  আপনি যদি এই পদক্ষেপগুলি নিয়মিত অনুসরণ করেন তবে আপনার পেজে লাইক ফলোয়ারের সংখ্যা খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

  স্পন্সরের মাধ্যমে ফেসবুক থেকে অর্থ উপার্জন করা

  যখন আপনার অনেক ফলোয়ার সহ একটি ভাল ফেসবুক পেজ থাকবে, আপনি দেখতে পাবেন যে তারা আপনাকে বিভিন্ন জায়গা থেকে স্পন্সর চাইবে।  তারা আপনার পৃষ্ঠায় একটি ভিডিও তৈরি করে আপনাকে তাদের পণ্য দেখানোর জন্য অর্থ প্রদান করবে অথবা আপনি আপনার পেজে তাদের একটি ছবি আপলোড করবেন।  আর এভাবেই বিভিন্ন কোম্পানি স্পন্সরশিপের জন্য বলে যখন আপনার পেজে প্রচুর ফলোয়ার থাকে এবং আপনার পেজের সমৃদ্ধি অনেক ভালো হয়।  আর এভাবেই আপনি স্পন্সরের মাধ্যমে ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।

  এই পোস্টে, আমি কীভাবে ফেসবুকে অর্থ উপার্জন করতে হয় সেই বিষয়টি তুলে ধরেছি। আশা করি সবাই বুঝতে পেরেছেন।

Rate this post

3 thoughts on “ফেসবুক থেকে ইনকাম করার উপায় ২০২২”

Leave a Comment