ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস সুবিধা | জানুন বিস্তারিত

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস সুবিধা– আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক বৃন্দ, আশা করি সবাই ভালো আছেন। আপনি কি ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস সুবিধা সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? তাহলে আজকের পোস্টটি আপনার জন্য। আজকে আমি শেয়ার করব ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস সুবিধা। আশা করি সবাই মনোযোগ সহকারে পড়বেন।

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস সুবিধা – ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড (আইবিবিএল) বাংলাদেশে ইসলামী ব্যাংকিংয়ের পথপ্রদর্শক। ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড (IBBL) হল দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম ইসলামী ব্যাংক যা ইসলামী নিয়ম বা শরীয়াহ্‌র অধীনে কাজ করে থাকে। বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক কোম্পানি আইন, 1913 এর অধীনে একটি পাবলিক লিমিটেড কোম্পানি হিসাবে 13 মার্চ 1983 সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। আজকে ইসলামি ব্যাংক ডিপিএস নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। তো চলুন শুরু করা যাক।

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস কি?

প্রথমে আপনাকে জানতে হবে ডিপিএস কি । DPAC এর পূর্ণ রুপ হলো “ডিপোজিট পেনশন স্কিম” (Deposit Pension Scheme)।   ডিপিএস হল একটি মেয়াদী আমানত যেখানে একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রতি মাসে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা ব্যাংকে জমা রাখতে হয়।  এক্ষেত্রে বিভিন্ন ব্যাংক এই আমানতের জন্য বিভিন্ন সুবিধা প্রদান করে থাকে। এটিই মূলত ডিপিএস।

আরও পড়ুনঃ

একইভাবে, একজন গ্রাহক ইসলামী ব্যাংকের অধীনে একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রতি মাসে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা নগদ জমা করতে পারবেন এবং কিছু লাভ সহ পরবর্তী সময়ে তা উত্তোলন করতে পারবেন। একে বলা হয় ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস।

আরও পড়ুনঃ  বিকাশ অ্যাপে তথ্য আপডেট করে পেয়ে যান ১০ টাকা বোনাস

ইসলামী ব্যাংকের ডিপিএস ফর্ম

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস খুলতে, প্রথমে একটি ফর্ম প্রয়োজন।  ইসলামী ব্যাংকের যেকোনো শাখায় গেলে ব্যাংক কর্মকর্তা আপনাকে একটি ফর্ম দেবেন। প্রথমে আপনাকে এই ফর্মটি পূরণ করতে হবে।  আর ফরম পূরণে সমস্যা হলে সেখানকার কর্মকর্তার সহায়তায় ফরমটি পূরণ করুন।

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস করতে কি কি লাগে?

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস করার জন্য প্রয়োজনীয় সকল কাগজ পত্র নীচে উল্লেখ করা হলো

1.একাউন্ট খোলার ফর্মটি পূরণ করুন।
2.আইডি দ্বারা যথাযথভাবে সত্যায়িত একাউন্টধারীর 02 কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
3. যাকে নমিনি দিবেন তার  1 কপি একাউন্ট হোল্ডার দ্বারা সত্যায়িত ছবি দিতে হবে।
4. জাতীয় পরিচয়পত্র/পাসপোর্ট/ গ্রাহকের চেয়ারম্যান সার্টিফিকেটের মতো শনাক্তকরণ প্রমাণ।
5. যেকোনো ইউটিলিটি বিলের ফটোকপি (বর্তমান বিল, গ্যাস বিল, পানির বিল)।

আমাদের গুগল নিউজ ফলো করুন।

ইসলামী ব্যাংকের ডিপিএস তালিকা

ইসলামী ব্যাংকগুলিতে বিভিন্ন ধরণের ডিপিএস স্কিম পাওয়া যায়, যেমন –

  • ইসলামী ব্যাংক মুদারাবা সেভিংস ব্যাংক পেনশন স্কিম।
  • ইসলামী ব্যাংক মুদারাবা সেভিংস হজ স্কিম।
  • ইসলামী ব্যাংক মুদারাবা বিবাহ সঞ্চয় প্রকল্প।
  • ইসলামী ব্যাংক মোহর সেভিংস স্কিম।

আপনি ইসলামী ব্যাংকে এই সকল ডিপিএস একাউন্ট/স্কিম তৈরি করতে পারবেন এবং ডিপিএস মেয়াদ শেষে অর্জিত টাকার উপর আপনি মুনাফা পাবেন।

ইসলামী ব্যাংকের ডিপিএস মেয়াদ

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস মেয়াদ শেষ হওয়ার তারিখগুলি নিচে উল্লেখ করা হলো।

  • 3 বছর (36 মাস)
  • 5 বছর (60 মাস)
  • 10 বছর (120 মাস)

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস লাভের হার

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস মুনাফার হার প্রতি মাসে পরিবর্তিত হয়। তাই নিচে চলতি মাসের শতাংশ হিসাবে লাভের হার দেওয়া হল।  বর্তমান মুনাফার হার –

  • 3 বছর (36 মাস) = 5.80 শতাংশ
  • 5 বছর (60 মাস) = 6.00 শতাংশ
  • 10 বছর (120 মাস) = 6.20 শতাংশ

ইসলামী ব্যাংকের ডিপিএস মুনাফা প্রতি ৬ মাস অন্তর প্রদান করা হয়।  ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস লাভের হার তাদের ওয়েবসাইট এ পাবেন। সেখান থেকে আপনারা চেক করে নিতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ  USA থেকে বাংলাদেশে সেরা 10টি মানি ট্রান্সফার সার্ভিস

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস কিস্তির হার

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস কিস্তির হার বা পরিমাণ 500 টাকা থেকে 50,000 টাকা। তবে এখানে একটি বিষয় হল ইসলামী ব্যাংকের ডিপিএস কিস্তির হার হওয়া উচিত – 500, 1000, 2000, 3000, 4000, 5000 টাকা।
হয়তো আপনি ভাবতে পারেন যে আমি 1500/2500/3500 টাকার ডিপিএস করব কিন্তু তা হবে না।

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস সুবিধা

প্রতিটি বাণিজ্যিক ব্যাংকের ডিপিএস বিভিন্ন সুবিধা রয়েছে।  একইভাবে ইসলামী ব্যাংকের ডিপিএসেরও সুবিধা রয়েছে।  আপনি যদি ইসলামী ব্যাংকে একটি ডিপিএস একাউন্ট খুলেন, তাহলে এখানেও বিভিন্ন সুবিধা পাবেন।

  1. কোন সমস্যা নেই
2. ডিপিএস লাভের হার/পরিমাণ সর্বোচ্চ।
3. ডিপিএস মেয়াদ শেষে টাকা তোলা না হলে সেই টাকার সেভিংস একাউন্টের হারে অতিরিক্ত মুনাফা পাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।
4. ডিপিএস যেকোনো শাখায় স্থানান্তর করা যেতে পারে।

ইসলামী ব্যাংক ডিপিএস ভাঙার নিয়ম

ইসলামী ব্যাংকের ডিপিএস ভাঙার জন্য আপনাকে একটি নির্দিষ্ট ফর্ম বা ব্যাংকের সাদা কাগজে আবেদন করতে হবে।  আবেদনপত্রে আপনার নাম ঠিকানা এবং ডিপিএস নম্বর উল্লেখ করতে হবে।

মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে আপনি যদি ডিপিএস ভাঙতে চান তাহলে ইসলামী ব্যাংক থেকে যে মুনাফা পাওয়ার কথা ছিল তা আপনি পাবেন না।  ইসলামী ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী আপনি নির্দিষ্ট ইসলামী ব্যাংক থেকে আপনার টাকা ফেরত পাবেন।

আর আপনি যদি মেয়াদ শেষে ডিপিএস ভাঙতে চান, তাহলে আপনি আপনার নির্ধারিত ইসলামী ব্যাংক থেকে আপনার সম্পূর্ণ জমা এবং সম্পূর্ণ মুনাফা ফেরত পাবেন।

শেষ কথা

আজকের পোস্টে ইসলামী ব্যাংক এর ডিপিএস সুবিধা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি সবাই বুঝতে পেরেছেন। কেউ কিছু না বুঝলে থাকলে কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

Rate this post