বাংলাদেশের সেরা ১০টি পর্যটন কেন্দ্র

বাংলাদেশের সেরা ১০টি পর্যটন কেন্দ্র– আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক বৃন্দ, কেমন আছেন সবাই। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আপনি কি বাংলাদেশের সেরা ১০টি পর্যটন কেন্দ্র সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? তাহলে আজকের পোস্টটি আপনার জন্য। আজকে আমি শেয়ার করব বাংলাদেশের সেরা ১০টি পর্যটন কেন্দ্র নিয়ে। আশা করি সবাই মনোযোগ সহকারে পড়বেন।

বিশ্বব্যাংকের মতে বাংলাদেশ বিশ্বের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর একটি দেশ। বাংলাদেশের প্রতিটি জেলায় রয়েছে অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের স্থান।

পর্যটকরা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে প্রাকৃতিক সবুজ ভূমিতে বারবার বাংলাদেশে আসেন।

সবুজ, পাহাড় এবং সমুদ্র যা পর্যটকদের মুগ্ধ করে এবং তাদের জীবন দিয়ে পূর্ণ করে।  যার কারণে সবাই ছুটে আসেন সবুজ।

আরও দেখুনঃ

আজ আমি আপনাদের সাথে আলোচনা করব বাংলাদেশের 10টি প্রাণবন্ত, আকর্ষণীয় স্থান যা ভ্রমণের সময় আপনার মন ভরিয়ে দেবে।

01. Cox’s Bazar

সারি সারি ঝাউবন, নরম বালির বিছানা আর সামনে সমুদ্র মিশে গেছে বিশাল আকাশের সাথে। আর যেটা আমার কাছে বেশ ভালো মনে হচ্ছে তা হলো পৃথিবীর সবচেয়ে বড় সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার এবং দৈর্ঘ্যে 125 কি.মি.।

এটি বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সমুদ্র সৈকত যা বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ-পূর্ব অংশে অবস্থিত।  প্রাকৃতিক বালুকাময় সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য একটি আদর্শ স্থান।  সাগরের নীল জল, সামুদ্রিক মাছ, অজস্র রত্ন-সাগরে জন্মানো যা আপনার মনকে ভরিয়ে দেবে।  এছাড়াও এখানে অনেক প্রাচীন স্থাপনা রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ  ঢাকা বিভাগের সেরা 20টি পর্যটক কেন্দ্র

02. Sundarbans Mangrove Forest

জমিতে বাঘ দেখতে চান এবং পানিতে কুমির দেখতে চান তাহলে বাংলাদেশের সুদূর দক্ষিণে অবস্থিত ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনে যান।  এটি বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন।  ইউনেস্কোর মতে, সুন্দরবন ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান যা দুটি প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশ ও ভারতে অবস্থিত।  এ কারণেই সুন্দরবন ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে দুই নম্বর হেরিটেজ সাইট হিসেবে স্থান করে নিয়েছে।

03. St. Martin’s Island

আকাশের নীল আর সাগরের নীলে বেড়াতে যেতে চাইলে চলে আসুন সেন্ট মার্টিনে।  বিশ্বের বঙ্গোপসাগরের সবচেয়ে বড় প্রবাল দ্বীপ বাংলাদেশের সেন্ট মার্টিন।

আপনি কি নারকেলের সাথে পরিচিত?  সেন্ট মার্টিন দ্বীপ নারকেলের জন্য বিখ্যাত।  সে কারণেই সেন্ট মার্টিন দ্বীপ বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে তিন নম্বরে স্থান করে নিয়েছে।

04. Daughter of Ocean

প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগের জন্য কুয়াকাটা একটি এলাকা।  সবচেয়ে সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য সূর্যোদয়-সূর্যাস্ত।  এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের জন্য কুয়াকাটা বিখ্যাত।  তার মতো আর কেউ নেই।

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় সমুদ্র সৈকত।  যেখানে দাঁড়িয়ে সূর্যোদয়ের অপূর্ব সৌন্দর্য অবলোকন করা যায়।  কুয়াকাটাকে সাগরের কন্যা বলা হয়।  এ কারণেই কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে চার নম্বরে স্থান করে নিয়েছে।

05. Sajek Valley In Rangamati

পাহাড়ের সাথে মেঘের কুয়াশা।  মেঘরাশির হাসি, রাস্তার দুপাশে লাল, সবুজ ঘর-সাজেক উপত্যকা।  আমি বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের রাঙ্গামাটি জেলার সাজেক উপত্যকার কথা বলছি যাকে রাঙ্গামাটির ছাদ বলা হয়।

এটি কমলা চাষের জন্য বিখ্যাত।  এ কারণেই রাঙামাটির সাজেক উপত্যকাটি বাংলাদেশের সেরা দর্শনীয় স্থানের তালিকায় পাঁচ নম্বরে স্থান করে নিয়েছে।

06. Srimangal

শ্রীমঙ্গল বাংলাদেশের সিলেট বিভাগের একটি শহর যা দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত।  এটিকে বাংলাদেশে চায়ের রাজধানী বলা হয়।  এর আয়তন 425.15 বর্গ কিমি।  শ্রীমঙ্গলে মোট চা বাগানের সংখ্যা ৪০টি।

আরও পড়ুনঃ  পকেট রাউটার এর দাম ২০২৪ | পকেট রাউটার বাংলাদেশ প্রাইস | Pocket Router Price In Bangladesh 2024

বাংলাদেশের কয়েকটি চা বাগানের মধ্যে সিলেট অন্যতম।  সিলেটি চায়ের রং, স্বাদ, গন্ধ অতুলনীয়।  সিলেটের জাফলং রূপকথা হিসেবে সারা দেশে পরিচিত।

07. Paharpur

পাহাড়পুরে খননকৃত ধ্বংসাবশেষ বাংলাদেশে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।  এগুলি হিমালয়ের দক্ষিণে বৃহত্তম পরিচিত বৌদ্ধ মাঠের প্রতিনিধিত্ব করে।

যুগে যুগে এই ধ্বংসাবশেষের উপর বাতাসের প্রবাহিত ধূলিকণা ধীরে ধীরে একটি উঁচু ঢিবি বা পাহাড়ের আকার ধারণ করে।  এ কারণেই বৌদ্ধ মাঠটি বাংলাদেশের সাতটি সেরা স্থানের মধ্যে স্থান করে নিয়েছে।

08. Bandarban

নীলগিরি বাংলাদেশের বান্দরবানের থানচি উপজেলায় অবস্থিত।  আপনি যদি মেঘের সাথে মিশে মেঘ ছুঁতে চান এবং সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত দেখতে চান তবে বান্দরবানের নীলগিরিতে যান।  শুষ্ক মৌসুমের জন্য একটি আশ্চর্যজনক সুযোগ রয়েছে।

এটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে 2200 ফুট উচ্চতায় অবস্থিত যেখানে পর্যটকরা এখান থেকে মেঘ স্পর্শ করতে পারে।  এ কারণেই বান্দরবান বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে আট নম্বরে স্থান করে নিয়েছে।

09. Mosque City Bagerhat

বাগেরহাট শহর যেটি 15 শতকে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।  ইউনেস্কোর মতে এটি বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে স্বীকৃত।  ষাট গম্বুজ মসজিদটি সুলতানি আমলে নির্মিত হয়েছিল।  আর এটি বাগারহাট শহরের সবচেয়ে বড় মসজিদ।  এটি 1442 সালে নির্মিত এবং 1459 সালে সম্পন্ন হয়। এতে 72টি গম্বুজ রয়েছে।

মসজিদটি প্রার্থনা, মাদ্রাসা এবং সমাবেশের জন্য ব্যবহৃত হয়।  এটি প্রাচীন মসজিদের শহর হিসেবেও পরিচিত।  এখানে জিন্দাপীর মসজিদ, নয় গম্বুজ মসজিদ, বিবি বেগনি মসজিদ, সিংড়া মসজিদ সহ অনেক প্রাচীন নিদর্শন রয়েছে।

10. Sonargaon

মধ্যযুগে সোনারগাঁও ছিল বাংলার পুরনো রাজধানী।  সোনারগাঁও নামের উৎপত্তি প্রাচীন সুবর্ণগ্রাম থেকে।  1810 সালে, ঢাকা শহরের উত্থান পর্যন্ত সুনারগাঁও ছিল দক্ষিণ-পূর্ব বাংলার প্রশাসনিক কেন্দ্র।

খাসনগর দিঘী, দুলালপুরের নীলকুঠি, গোয়ালদী শাহী মসজিদ, আমিনপুর মঠ, দোমাদর্দী মঠ, পানাম নগর, বড় সদর বাড়িসহ সোনারগাঁয়ের অনেক প্রাচীন স্থাপত্য নিদর্শন রয়েছে এবং আরও অনেক প্রাচীন স্থাপনা রয়েছে।  এটি ঢাকার অদূরে নারায়ণগঞ্জে অবস্থিত।

আরও পড়ুনঃ  ২০২২ সালের কোরবানির ঈদ কবে

সোনারগাঁওয়ের আরেকটি আকর্ষণীয় স্থাপত্য কাঠামো জামদানি শাড়ি।  এক সময় এটি মসলিনের জন্য বিখ্যাত ছিল।  তবে এখন কারুপল্লীতে সরাসরি জামদানি শাড়ি দেখা যায়।

এ কারণেই সোনারগাঁও বাংলাদেশের সেরা দশটি স্থানের মধ্যে স্থান করে নিয়েছে।  পানাম শহরের বিধ্বস্ত প্রাসাদটিও বাংলাদেশের প্রাচীন ঐতিহ্য।

শেষ কথা

আজকের পোস্টে বাংলাদেশের সেরা ১০টি পর্যটন কেন্দ্র নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি সবাই বুঝতে পেরেছেন। ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করবেন। ধন্যবাদ সবাইকে।

Rate this post

3 thoughts on “বাংলাদেশের সেরা ১০টি পর্যটন কেন্দ্র”

Leave a Comment