কেনো অনলাইন বিজনেস শুরু করবেন? জানুন বিস্তারিত

 

বিজনেসের পূর্বশর্ত হলো ক্রেতাসাধারণের কাছে পণ্য পৌঁছে দিতে পারার মাধ্যম থাকা। এই মাধ্যম হিসেবে আমরা ছোট-বড় দোকান ধরে নিতে পারি। আপনি পণ্য তৈরির বিজনেস করেন কিংবা পণ্য তৈরির উপকরণ  নিয়ে কাজ করেন….সবকিছুর একটাই উদ্দেশ্য। তা হলো পণ্য বিক্রি করা। পণ্য ক্রেতাসাধারণের হাতে তুলে দেওয়া। এই কাজটির জন্য প্রয়োজন পড়ে ক্রেতাগণের সাথে সহজেই যোগাযোগ করার মাধ্যম, পণ্য তৈরির উপকরণের সহজলভ্যতা এবং সহজেই ক্রেতার কাছে পৌঁছে দেওয়ার সুবিধা। বর্তমান সময়ের সাথে যা খুব ভালোভাবেই যায়। ফলস্বরূপ প্রসারিত হচ্ছে অনলাইন বিজনেসের মাত্রা।

আরও পড়ুনঃ

 

কেন অনলাইনে বিজনেস এতোটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে?

অনলাইনে বিজনেস করার বিষয়টি এই কয়েকবছরে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। প্রতিটি ঘটনার পেছনে কারণ থাকে। ঠিক তেমনি এই অনলাইন বিজনেসের প্রসারতার পিছনেও উপযুক্ত কারণ রয়েছে। এসব কারণগুলিকে বেশ সুক্ষভাবে পর্যবেক্ষন করলে বোঝা যায় অনাগত ভবিষ্যতে অফলাইন বিজনেসের মাত্রা অনেকাংশে কমে যাবে। সুতরাং ক্যারিয়ার হিসেবে অনলাইনে বিজনেস করার সিদ্ধান্তটা শতভাগ সঠিক। পাশাপাশি যেসব কারণে অনলাইন বিজনেস বর্তমানে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে:-

 

বর্তমানে অনলাইন বিজনেসের জনপ্রিয় চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়ছে। এর পিছনে অনেক কারণ রয়েছে। তবে কিছু কিছু কারণ খুবই দৃশ্যমান। যেমন—

 

সীমিত মূলধন

অনলাইনে বিজনেস করার অনেক বড় একটি সুবিধা হলো দোকান কিংবা শপিংমল তৈরি না করেও বিজনেস চালিয়ে যাওয়ার সুযোগ। একজন ব্যাক্তি খুব সহজেই নিজের বাড়ির একটি কিংবা ততোধিক রুমে পণ্য জমায়েক করতে পারে। ফলে দোকান কিংবা শপিংমল দেওয়ার অর্থ বিজনেসের অন্যকোনো খাতে ব্যায় করা যায়। পাশাপাশি শপিংমলে থাকা কর্মচারী এবং এর সাথে সংশ্লিষ্ট অন্যান্য খরচটাও সাশ্রয় হয়।

আরও পড়ুনঃ  বাংলাদেশের সেরা কুরিয়ার সার্ভিস কোম্পানি

 

সহজেই যোগাযোগ করার মাধ্যম

যিনি অনলাইন বিজনেসের সাথে জড়িত তিনি খুব সহজেই তার টার্গেট করা ক্রেতার সাথে যোগাযোগ করতে পারে। বর্তমানে প্রায় প্রতিটি মানুষই বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার সাথে যুক্ত রয়েছে। ফলে অনলাইনে বিজনেস করা ব্যক্তিটি খুব সহজেই তার ক্রেতাদের সাথে তার পণ্য সম্পর্কিত নানান তথ্যাবলি শেয়ার করতে পারে। এর জন্য আলাদা কোনো অর্থেরও প্রয়োজন হয় না।

 

ঘরে বসেই বিজনেস পরিচালনা

অনলাইন বিজনেসএ ঘরে বসেই পুরো বিজনেস পরিচালনা করার সুযোগটি কিন্তু খুব কাজের। বিশেষ করে এই করোনা পরিস্থিতিতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করছে এই সুযোগটি। পাশাপাশি যেসব মুসলিম নারীরা পর্দাপ্রথা মেনে স্বাবলম্বী হতে চায় তাদের জন্য সূবর্ণ সুযোগ এই অনলাইন বিজনেস।

 

অনলাইনে কেনাকাটা করার প্রবণতা

সময় বয়ে চলছে তার নিজস্ব গতিতে। যেহেতু সময়ের চাকা চলছেই সেহেতু সমাজের পরিবর্তনের চাকা থেমে থাকার কোনো জোঁ নেই। বর্তমান তরুণ প্রজন্ম যেভাবে প্রযুক্তিনির্ভর হয়ে পড়ছে সেভাবে পরবর্তীতে তারা এই নির্ভরশীলতা কাটিয়ে উঠতে পারবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ আছে। ক্লাস থেকে শুরু করে সচেতনতা তৈরি করার মতো সব কঠিন কাজগুলোই এখন অনলাইনে খুব সহজে করা যায়। অনলাইনে কেনাকাটার ব্যাপারটিও বেশ খুশিমনেই সাদরে গ্রহণ করেছে অনলাইননির্ভর মানুষগুলি। তাই অনলাইন বিজনেসের চাহিদা যে অদূর ভবিষ্যতে বেড়েই চলবে তা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়।

 

সুতরাং অনলাইনে বিজনেসের জনপ্রিয়তা বেড়ে যাওয়ার মাত্রা দেখে বসে না থেকে আপনিও শুরু করে দিন। এই আধুনিকতার যুগে ঘরের এককোনায় বসে না থেকে নিজেকে স্বাবলম্বী করে তুলুন। ক্যারিয়ার হিসেবে অনলাইন বিজনেসের অনেক বড় একটি সম্ভাবনা রয়েছে। এই সম্ভাবনাকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করুন। নিজেকে নিয়ে বলার মতো নতুন একটি গল্প তৈরি করুন।

ধন্যবাদ

 

 

Rate this post

2 thoughts on “কেনো অনলাইন বিজনেস শুরু করবেন? জানুন বিস্তারিত”

Leave a Comment